আকাশবাণী - মেহেদী সম্রাট - সেরা-সংগ্রহ.কম
X

Tuesday, March 22, 2016

আকাশবাণী - মেহেদী সম্রাট

আকাশবাণী

মেহেদী সম্রাট




জমির শেখ কানের কাছে রেডিও নিয়ে বসে আছে। অবস্থান অচিন্তপুর জঙ্গলে। গত তিনদিন ধরে সে অদ্ভুতরকমের রহস্যময় আচরণ করছে। দিন নেই রাত নেই, খাওয়া-দাওয়ারও ঠিক নেই। সারাক্ষণ শুধু কানের কাছে রেডিও নিয়ে বসে থাকে। দুনিয়ায় তার যেন আর কোন কাজকর্ম নেই আকাশবাণীর গান শোনা ছাড়া।

জমির শেখের এই অদ্ভুত আচরণে অন্য নয়জনের মত দবির উদ্দিনও মহা বিরক্ত। তারা নিজেদের মধ্য কানাঘুষা করতে থাকে। ‘জমির ভাই কি পাগল- টাগল হইয়া গেল নাকি! কাজের কথা মনে হয় ভুইল্লাই গ্যাছে। কথা নাই বার্তা নাই, দিনরাত খালি আকাশবাণীর গান শোনে।’ এরকম আরো নানান আলাপচারিতা হয় দবিরউদ্দিন সহ অন্যান্যদের মধ্যে। কিন্তু এসব কথার কিছুই জমির শেখের কানে পৌঁছায় না। এসব ব্যাপার নিয়ে তাকে কেউ প্রশ্ন করতেও যায় না। শুধু নিরবে দেখতে থাকে। এবং অপেক্ষা। কোন কাজের মধ্যে থাকলে সময় যেমন তাড়াতাড়ি বয়ে যায়, ঠিক তেমনই কাজহীন অলসতায় সময় যেন চলতেই চায় না। ঠিক যেন ঐ গানটার মত, ‘কাটে না সময় যেন আর কিছুতেই’— দবির উদ্দিনদেরও হল সেই দশা। জমির শেখ কিছু না বলা পর্যন্ত কারো তেমন কোন কাজ নেই। কাজ শুধু ঘড়ির কাঁটা মেপে চলা। ঘড়ির সেকেন্ডের কাঁটাটা ষাটবার লাফ দিতেও যেন যুগযুগ সময় নেয়। একসময় মৃদু ভলিউমে রেডিওতে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র বাজিয়ে পাশে রেখে তাস খেলতে বসে যায় দবির উদ্দিনসহ কয়েকজন। একটু দূরেই আমগাছের সাথে হেলান দিয়ে কানের কাছে রেডিও ধরে থাকা জমির শেখ একবার শুধু চোখ উল্টিয়ে তাকায়। কিন্তু কি যেন ভেবে কিছু না বলেই চোখ ঘুরিয়ে নেয় অন্যদিকে।

অচিন্ত্যপুরের কাছাকাছি একটা নদী বন্দরে ঘাঁটি গেড়েছে পাকিস্তান মিলিটারি বাহিনীর কয়েকটা জাহাজ। সেই জাহাজগুলো ধ্বংস করে লুটবাহিনীর এ-ঘাঁটি নিশ্চিহ্ন করে দিতে ১১জনের একটি শক্তিশালী গেরিলা ইউনিট পাঠিয়েছে মুক্তিযুদ্ধের হাই কমান্ড। বেশ কয়েকদিন ধরে অচিন্ত্যপুরের একটা গহিন জঙ্গলে অবস্থান নিয়ে আছে গেরিলা কমান্ডোদের সেই ইউনিট। জমির শেখ সেই ইউনিটের দলপতি। অপারেশনের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত জমির শেখের দল। কিন্তু হাইকমান্ড থেকে এখনো কোন সিগন্যাল আসেনি।

জমির শেখ প্রতিটি মুহুর্ত হাইকমান্ডের সিগন্যালের জন্য কান পেতে আছে। আজ কয়েকদিন অচিন্ত্যপুর জঙ্গলে অবস্থান নিয়ে আছে মুক্তিবাহিনী। ইউনিটের দলপতি জমির শেখ ভীষণ চিন্তিত। দুশ্চিন্তার ছাপ ক্রমেই স্পষ্ট হচ্ছে তার চেহারায়। মনের গহিনে বাসা বাঁধছে অজানা শঙ্কা। কোনভাবে কি সিগন্যাল মিস করেছে সে?

মনের ভেতর এমন প্রশ্নের উদয়ে কেঁপে ওঠে জমির শেখ। না এমনটা হতেই পারে না। নিজের মনকে শান্তনা দেয় সে। আরো একটু সতর্ক হয়ে নড়েচড়ে বসে। হাতে থাকা ১ ব্যান্ডের রেডিওটা এগিয়ে ধরে কানের কাছে। আজ অচিন্ত্যপুর জঙ্গলে মুক্তিযোদ্ধাদের চতুর্থ দিন। সকাল ৭:৩০টা। জমির শেখ সেই একই ভাবে কানের কাছে, রেডিও নিয়ে আকাশবাণী শুনছে। গানের অনুষ্ঠান চলছে। দবির উদ্দিন হাত পা ছড়িয়ে মাটিতে শুয়ে ঘুমাচ্ছে। অবশ্য মাটির উপরে কিছু খড়কুটো বিছিয়ে নিয়েছিল। সারারাত পাহারার দায়িত্বে ছিল সে। অন্যান্যরা ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসে আছে আশেপাশে। কেউ বসে আছে গাছের সাথে হেলান দিয়ে। শূণ্য দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে আকাশের দিকে। ডুবে আছে ভাবনার গভীরে। ভাবনাজুড়ে একখণ্ড স্বাধীন আবাস ভূমির প্রতিচ্ছবি। হচকচিত হয়ে কান খাড়া করে বসল জমির শেখ।

আকাশবাণীতে বাজছে একটা গান। গানটি তার খুব পরিচিত মনে হয়। আরেকটু মনোযোগ দিয়ে শোনে। উৎফুল্ল হয়ে ওঠে জমির শেখ। এটাইতো সেই গান!পঙ্গজ মল্লিকের, ‘আমি তোমায় যত গান শুনিয়েছিলাম’ যা বোঝার বুঝে গেছে সে। এই প্রথম উঠে দাঁড়ায় রেডিও রেখে। সবাইকে ডেকে নিয়ে বলে, ‘সবকিছু গুছিয়ে তৈরি হও। আজকালের মধ্যেই অপারেশন।’ সবাই নিজ নিজ জিনিসপত্র গুছিয়ে নিল। শুধু জমির শেখ গভীর মনোযোগের সাথে রেডিও আকাশবাণী শুনছে। পরদিন একই সময় অর্থাৎ সকাল ৭:৩০ টায়। আকাশবাণীতে প্রচারিত হল সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের, ‘আমার পুতুল আজকে প্রথম যাবে শ্বশুর বাড়ি’ গানটি। এটা ছিল আক্রমনের চূড়ান্ত নির্দেশ। জমির শেখ রেডিও বন্ধ করল। চূড়ান্ত আক্রমনের প্রস্তুতি নিল তারা। মাল-মসলা সব রেডি আছে। একবার শুধু পরীক্ষা করে নিল।

সেদিন সন্ধ্যার পর চারদিক ঘন অন্ধকার। এর মাঝেই লক্ষ্যবস্তুর দিকে ধীরে ধীরে এগোতে থাকে জমির শেখের দল। সদা ফূর্তিবাজ দবির উদ্দিনও জমির শেখের পাশাপাশি হাঁটছে। রাত তখন ১০টা। নদীর ধারে একটা ঝোপের আড়ালে এসে থেমেছে কমান্ডো দল। এখান থেকে স্পষ্টতই দেখা যাচ্ছে নদীর ওপারে নোঙর করা আলো ঝলমল মিলিটারি জাহাজ। কমান্ডোগণ শেষবারের মত দোয়া-দরুদ পড়ে তৈরি হয়ে নিল। প্রত্যেকে পায়ে ফিনস্ পড়ে নিল। গামছা দিয়ে প্রত্যেকে পেটের সাথে বাধলো প্রায় ৫কেজি ওজনের নিমপেট মাইন। বিশেষভাবে কোমরের সাথে আটকে নিল একটি সার্ভিস নাইফ। সর্বপ্রথম নদীতে নামল জমির শেখ। এরপর একে একে সবাই। খরস্রোতা নদীর উন্মাতাল জলরাশির বুকচিরে। জীবনের মায়া ত্যাগ করে। শত্রু সৈন্যের জাহাজের দিকে এগিয়ে চলেছে স্বাধীনতার স্বপ্নে বিভোর ১১জন কমান্ডো। দীর্ঘসময় সাঁতরিয়ে নদীর স্রোতের সাথে যুদ্ধ করে অবশেষে শত্রু জাহাজের তলদেশে পৌঁছালো তারা। ছুরি দিয়ে জাহাজের তলার কিছু অংশের শেওলা চেছে পরিস্কার করে নিল। সেখানে ফিট করে দিল মাইন। মাইনের এ্যাকটিভ সূইচ অন করে দিয়ে প্রাণপনে সাঁতরাতে থাকে তীরের দিকে। বিশ-পঁচিশ মিনিটের মধ্যে যে করেই হোক চার থেকে পাঁচশ গজ দূরে সরে যেতে হবে সাঁতরিয়ে। না হলে মাইন বিস্ফোরনের থেকে সৃষ্টি হওয়া শকওয়েভের ধাক্কায় বুকের মধ্যে হৃদপিণ্ড ফেটে মৃত্যু ঘটার সম্ভাবনা নিশ্চিত।

কমান্ডোদের প্রত্যেকে অক্ষত অবস্থায় তীরে ফিরলো। ওদিকে মাইনের প্রচণ্ড বিস্ফোরণে পাকিস্তানি লুটেরাদের সাতটি জাহাজ তলিয়ে গেল। রাত তখন প্রায় ২:৩০টা। এবার উল্টোদিকের জঙ্গলের ভিতর দিয়ে হাঁটতে লাগলো জমির শেখের দল। প্রচণ্ড পানির পিপাসায় বুক শুকিয়ে আছে। অনেকদূর হেঁটে জঙ্গলের ভিতরে একটা পুকুর পাওয়া গেল। রাতের বাকি অংশ এখানেই থাকার সিদ্ধান্ত হল। পুকুরের পানি দিয়ে পিপাসা নিবারণ করলো দবির উদ্দিনসহ কয়েকজন। ভোরের আলো ফুটতে শুরু করেছে। জমির শেখ পুকুরের পারে নামল হাতমুখ ধুয়ে নিতে। আঁৎকে উঠলো সে! পুকুরের পাড়ে লাশের স্তুপ। পাকিস্তানি লুট হানাদারদের বর্বরতার সাক্ষী হয়ে পড়ে আছে কয়েকজন নারী, দু’জন বৃদ্ধ, একটা শিশু আর তিনটে পুরুষের লাশ। সূর্য উঠে গেছে। শহীদের লাশের উপর গড়িয়ে পড়ছে সূর্যের আলো। নিজের দল নিয়ে সামনে এগোতে থাকে জমির শেখ। বাতাসে ভেসে আসছে শিউলি ফুলের গন্ধ। সামনে একটা মেঠোপথ। পথের ধারে কয়েকটা খেঁজুর গাছ। তার পেছনে একটা মাঠ। কয়েকটা শূন্য ভিটা, কাশবন। এগোতে থাকে ওরা...



Post Top Ad


Download

click to begin

6.0MB .pdf