মেহেদী সম্রাট এর অণুগল্প - আফিং - সেরা-সংগ্রহ.কম
X

Friday, May 6, 2016

মেহেদী সম্রাট এর অণুগল্প - আফিং

আফিং

-মেহেদী সম্রাট



আফিং এর নেশায় বুঁদ হইয়া এলোপাথাড়ি হাঁটিতে লাগিলো কমলাকান্তের ছেলে আপেলকান্ত। তাহার চলিবার পথটি ছিলো বড়ই বন্ধুর। পথটি গাঁয়ের শেষ প্রান্তে যাইয়া দক্ষিণের বনের অভ্যন্তরে ঢুকিয়া গিয়াছে। বনের মধ্যেকার নিকশ অন্ধকার পথটারে যেনো আরো বেশি কণ্টকময় করিয়া তুলিয়াছে। তবুও সেই পথ ধরিয়াই আপেলকান্ত আগাইতে থাকে।

ইহার কারণ হইলো, দক্ষিণের ঐ বনের শেষে এক বিশাল মাঠ রহিয়াছে। সেই মাঠ পেরিয়ে ওপারেই রহিয়াছে সেই গ্রাম। যেখানে যাইবার উদ্দেশ্যে বাড়ি হতে বাহির হইয়াছে কমলাকান্তের পুত্র আপেলকান্ত। ঐ গ্রামে পৌঁছিবার জন্য দিনরাত অনবরত হাঁটিয়া চলেছে আপেলকান্ত। মাঝে মাঝে অবশ্যি সে থামিয়া যায়..! যখন তাহার আফিং এর নেশার ঘোর কাটিয়া যায় আরকি..! ইহারপর সে আবার আফিং সেবনে মনোনিবেশ করে। আফিং এর নেশায় তাহার আঁখিদ্বয় রক্তবর্ণ করিয়া পুনরায় উঠিয়া দাঁড়ায়। এবং হাঁটিতে থাকে। সেই গ্রামে যে তাহাকে যাইতেই হইবে।

কেননা তাহার পিতা কমলাকান্ত তাহাকে স্বপনে আসিয়া বলিয়া গিয়াছে, সেই গ্রামে এক বিধাতা বাস করিয়া থাকেন। তিনি সমাজের সর্বেসর্বা..!! তাহার কথায় সকলে এবং সকল কিছু পরিচালিত হইতে বাধ্য। তিনি দিনকে রাত আর রাত কে দিন বলিলে উহাই সবাই মানিয়া লইবে। কমলাকান্ত তাই আপেলকান্তকে স্বপনে আসিয়া দায়িত্ব প্রদান করিয়াছে যে, সেই গ্রামে পৌঁছাইয়া ঐ বিধাতাকে খুঁজিয়া বাহির করিতে হইবে। এবং তাহাকে জানাইতে হইবে যে, 'হে বিধাতা(!) সমাজের সবাইকে আফিং এর নেশায় মজাইয়া রাখিয়া আপনি যে নিজ স্বার্থোদ্ধার করিয়া চলিয়াছেন তাহা আমার স্বর্গবাসী পিতা আফিংখোর কমলাকান্ত ঠিকই বুজিয়াছেন। তাই আপনি সতর্ক হোন, অন্যথায় আমার পিতা কমলাকান্ত সকল আফিংখোর মূর্দা জাগাইয়া তুলিয়া অচিরেই যুদ্ধযাত্রা করিবেন। "

নিজ পিতার এই কথা গুলো মনে করিতে করিতে আপেলকান্ত দক্ষিণের বন পার হইয়া আসিয়া মাঠের কিনারে দাঁড়াইয়াছে। অতঃপর আরো খানিকটা আফিং গিলিয়া সে ঐ গ্রামের মধ্যে প্রবেশ করিলো। গ্রামে ঢুকিয়া আপেলকান্ত জানিতে পারিলো সেই বিধাতার নাম 'সরকার'।
অতঃপর সে ঐ 'বিধাতা'র নিকট আসিয়া তাহার পিতার বার্তা পৌঁছাইয়া দিলো। এবং তাহার সাথে আরো খানিকটা যোগ করিয়া কহিলো, 'আমরা আফিং এর নেশায় বুঁদ হইয়া থাকিতে পারি, কিন্ত আমরা মানষিক বিকার গ্রস্থ নহে। আফিং এর নেশার ঘোর কাটিয়া গেলেই তোমাদিগকে ঠেঙিয়ে তাড়াবার হিম্মত আমাদের (জনগনের) এখনো অক্ষুণ্ণ রহিয়াছে। " এই বলিয়া আপেলকান্ত বুক উঁচাইয়া স্বগৃহের উদ্দেশ্যে পথ ধরিলো। আফিং এর নেশায় তখনো তাহার চক্ষুদ্বয় রক্তবর্ণই হইয়া আছে......