Breaking News

বাংলাদেশ পরিক্রমাঃ বরিশাল বিভাগ- পিরোজপুর জেলা

পিরোজপুর জেলা


"ফিরোজ শাহের আমল থেকে ভাটির দেশের ফিরোজপুর, বেনিয়া চক্রের ছোয়াচ লেগে পাল্টে হলো পিরোজপুর" উপরোক্ত কথন থেকে পিরোজপুর নামকরণের একটা সূত্র পাওয়া যায়। নাজিরপুর উপজেলার শাখারী কাঠির জনৈক হেলাল উদ্দীন মোঘল নিজেকে মোঘল বংশের শেয় বংশধর হিসেবে দাবি করেছিলেন বলে জানা যায়। বাংলার সুবেদার শাহ।। সুজা আওরঙ্গজেবের সেনাপতি মীর জুমলার নিকট পরাজিত হয়ে বাংলার দক্ষিণ অঞ্চলে এসে আত্মগোপন করেন। এক পর্যায়ে নলছিটি উপজেলার সুগন্ধা নদীর পাড়ে একটি কেল্লা তৈরি করে কিছুকাল অবস্থান করেন। মীর জুমলার বাহিনী এখানেও হানা দেয়, শাহ সুজা তাঁর দুই কন্যাসহ আরাকান রাজ্যে পালিয়ে যান। সেখানে তিনি অপর এক রাজার চক্রান্তে নিহত হন। পালিয়ে যাওয়ার সময় তাঁর স্ত্রী ও এক শিশুপ্রত্র রেখে যান। পরবর্তীতে তারা অবস্থান পরিবর্তন করে ধীরে ধীরে পশ্চিমে চলে আসে এবং বর্তমান পিরোজপুরের পাশ্ববর্তী দামোদর নদীর মুখে আস্তানা তৈরি করেন। এ শিশুর নাম ছিল ফিরোজ এবং তাঁর নামানুসারে হয় ফিরোজপুর। কালের বিবর্তনে ফিরোজপুরের নাম হয় 'পিরোজপুর'। পিরোজপুর ১৯৫৯ সালের ২৮ অক্টোবর পিরোজপুর মহকুমা এবং পরবর্তীতে ১৯৮৪ সালে জেলার রূপান্তরিত হয়।


বিখ্যাত খাবার
পেয়ারা
নারিকেল
সুপারি
আমড়া

বিখ্যাত স্থান
রায়েরকাঠি জমিদারবাড়ি
মঠবাড়িয়ার সাপলেজা কুঠিবাড়ি
প্রাচীন মসজিদ
মঠবাড়িয়ার মমিন মসজিদ
শ্রীরামকাঠি প্রণব মঠ সেবাশ্রম
গোপালকৃষ্ণ টাউন ক্লাব
শেরেবাংলা পাবলিক লাইব্রেরি
মাঝের চর মঠবাড়িয়া
পাড়েরহাট জমিদারবাড়ি
বলেশ্বরঘাট শহীদ স্মৃতিস্তম্ভ
রিভারভিউ ইকোপার্ক
সারেংকাঠী পিকনিক স্পট
স্বরুপকাঠীর পেয়ারা বাগান
কবি আহসান হাবিব এর বাড়ী
কুড়িয়ানা অনুকুল ঠাকুরের আশ্রম