জেলী ফিসঃ বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত প্রানী ! - সেরা-সংগ্রহ.কম

Saturday, January 16, 2016

জেলী ফিসঃ বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত প্রানী !

জেলী ফিসঃ বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত প্রানী !





পৃথিবী সব থেকে বিষাক্ত প্রানীদের নাম বলতে গেলে প্রথমেই যে নামটি আসে সেটি "বক্স জেলিফিস"।ভাবছেন একটি সামুদ্রিক মাছ আর কতোটাইবা বিষাক্ত হতে পারে! আসলে জেলিফিস কোন মাছ নয়, যদিও এটি "ফিস" বলেই পরিচিত। ঘন্টাকৃতি জেলীসদৃশ প্রাণীটি প্রাণীজগতের নিডারিয়া পর্বের সিফোজোয়া শ্রেণীর অন্তর্গত। জেলিটিন সমৃদ্ধ ছাতার মত অংশ এবং ঝুলে পড়া কর্ষিকা - এ দুই অংশে প্রাণীটির দেহ গঠিত। এদের জীবনকাল মাত্র কয়েক ঘন্টা থেকে কয়েক মাস পর্যন্ত হয়ে থাকে।

আর যদি বিষের কথা বলেন, তাহলে দেখা যায় তিব্রতার দিক দিয়ে এটা "কিং কোবরা" কেও হার মানায়। এর কামড়ে মাত্র চার মিনিটেই শিকার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। পরসংখ্যান বলছে, ১৯৫৪ সালে রেকর্ড পরিমান ৫৫৬৭ জন মারা যান বক্স জেলিফিশের বিষাক্ত আক্রমনে। বিষাক্ততার জন্য একে 'বক্স অফ ডেথ' ও বলা হয়। একে সমুদ্রের "ভিমরুল" নামেও আখ্যা দেওয়া হয়ে থাকে। এর বিষ নার্ভাস সিষ্টেমকে অচল করে ফেলে, হার্ট কাজ করা বন্ধ করে দেয় ও চামড়া ড্যামেজ করে ফেলে। এর বিষ এতোটাই প্রচন্ড ব্যথা তৈরি করে যে আক্রান্ত ব্যাক্তি শকে চলে যায়, কোনোরুপ সাহায্য পাওয়ার আগেই হার্ট ফেইলার হয়ে মৃত্যুর মুখে পতিত হয়। 



সার্ভাইবাররা কয়েক সপ্তাহ পরেও আক্রান্ত স্থানে ব্যথা অনুভব করে। যদি আপনি বক্স জেলিফিশের সংস্পর্শে আসেন তাহলে আপনার বাঁচার সম্ভাবনা নাই বললেই চলে যদি না খুবই দ্রুত আপনাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

 এই বিষ কমানোর একটা সহজ উপায় আছে, তা হলো ভিনেগার।  আক্রমনের পর আক্রান্ত স্থানে সাথে সাথে ভিনেগার ঢালতে হবে। ভিনেগার হলো এসিটিক এসিড যা এই পয়জনকে নিউট্রালাইজ করে ফেলে। কিন্তু এটি সেই অসম্ভব ব্যথা কমাতে পারে না।

বক্স জেলিফিস থেকে বাঁচতে হলে সুইমসুট পরে সাগরে নামা উচিত। বক্স জেলিফিশ এশিয়া ও অস্ট্রেলিয়ার সাগরে পাওয়া যায়। প্রায় ৫০০০ কোটি বছর ধরে এরা পৃথিবীতে টিকে আছে।




তথ্য সূত্রঃ

-উইকিপিডিয়া
-স্যামহয়ার ইন ব্লগ

Post Top Ad