মেহেদী সম্রাট এর অণুগল্প - যুদ্ধ - সেরা-সংগ্রহ.কম

Saturday, March 19, 2016

মেহেদী সম্রাট এর অণুগল্প - যুদ্ধ

যুদ্ধ

মেহেদী সম্রাট



অণুগল্প
যুদ্ধ || মেহেদী সম্রাট

চারদিকে ভয়াবহ গোলাগুলির শব্দ। ছমিরন খুব উদ্বিগ্ন। তাদের পুরো গ্রাম ঘিরে ফেলেছে হানাদাররা। এ গ্রামেই মুক্তিযোদ্ধাদের একটা ক্যাম্প আছে। প্রচন্ড যুদ্ধ হচ্ছে মুক্তিবাহিনীর সাথে। ছমিরন ঘরের কোনে ঘাপটি মেরে বসে আছে। অন্ধকারেই ঘামছে সে। ভয়ে নয়, উত্তেজনায়।

ওদিকে বিপ্লবরা প্রাণপণে হানাদারদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে। বিপ্লব এই ক্যাম্পের কমান্ডার। তার দলে বেশ কয়েকজন নারী গেরিলাও রয়েছে। ছমিরন তাদের মধ্যে অন্যতম। বিপ্লব আর ছমিরন একসাথেই যুদ্ধে যোগ দিয়েছে। সম্পর্কে ওরা ভাই- বোন। ওদের মা-বাবা কেও হারিয়েছে এই যুদ্ধেই। তবুও ওরা অটল। রাতদিন অবিরাম লড়ে চলেছে হিংস্র নেকড়েদের বিরুদ্ধে। লক্ষ্য একটাই, স্বাধীনতা চাই। পাকিস্তানিদের অত্যাচার, নিপীড়ন, শোষণ, নির্যাতন, লুট, ধর্ষণের এবার দাঁতভাঙ্গা জবাব দিতে হবে। যে করেই হোক নিজ মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করতেই হবে। গড়তে হবে সোনার বাংলা। যুদ্ধ চলছে প্রাণপণ।

এদিকে হঠাৎ ছমিরনের ঘরের দরজায় বুটের লাথি পড়ে। কেঁপে ওঠে পুরানো দরজার খিল। হঠাৎ নিভে যায় হারিকেনের টিমটিমে আলো। ঘরের কোনে পজিশন নেয় ছমিরন। ভরসা সঙ্গে থাকা স্টেনগান আর অল্প কিছু গুলি। অনবরত লাথি পরছে ঘরের বন্ধ কপাটে। একসময় ভেঙে পরে দরজা। ভেতরের অন্ধকার থেকে ছুটে আসে একঝাঁক গুলি। উচ্চারিত হয় 'জয় বাংলা'! এ পরিস্থিতির জন্য মোটেও প্রস্তুত ছিলো না হানাদাররা। মুহূর্তের মধ্যে তিন-চারজন লুটিয়ে পরে মাটিতে। অবস্থা বুঝতে পেরে ওরাও পজিশন নেয়। কিছুক্ষন এলোপাথাড়ি গুলি ছোড়ে। ছমিরনও পাল্টা জবাব দেয়, তবে তার কাছে থাকা গুলি ফুরিয়ে যায় অল্প সময় পরেই।

এরও কিছুক্ষন পর, হানাদারদের টর্চের আলো পরে ছমিরনের রক্তাক্ত দেহের উপর। বেশক'টা গুলির ক্ষত স্পষ্ট। তবুও বেঁচে আছে ছমিরন! এরপর সাত সাতটা পিশাচ ঘৃণ্য আক্রোশে ঝাঁপিয়ে পরে তার রক্তাক্ত দেহের উপর। পিশাচগুলো ছিঁড়ে ছিঁড়ে খেতে থাকে তাকে। ধর্ষিত হতে হতে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে
এগোতে থাকে একজন গেরিলা, ছমিরন।

মৃত্যুর আগে আগে ছমিরন শুনতে পায় গোলাগুলির শব্দ অনেকটা কমে এসেছে। দূর হতে সমস্বরে ভেসে আসছে 'জয় বাংলা' ধ্বনি। ভোর হয়ে এসেছে প্রায়। থেমে থেমে চলছে যুদ্ধ। ক্ষতবিক্ষত ছমিরনের দেহের উপর চলছে পাশবিক রেপ।

Post Top Ad