রামায়ণে উল্লিখিত ‘সঞ্জীবনি বুটি-র’খোঁজে হিমালয় চষবে উত্তরাখণ্ড সরকার! - সেরা-সংগ্রহ.কম

Wednesday, August 3, 2016

রামায়ণে উল্লিখিত ‘সঞ্জীবনি বুটি-র’খোঁজে হিমালয় চষবে উত্তরাখণ্ড সরকার!

ইন্দ্রজিৎ-এর বাণে মূর্চ্ছা গিয়েছেন লক্ষণ। এভাবে পড়ে থাকলে তাঁর মৃত্যু অবধারিত। একমাত্র অতি-প্রাকৃতিক ক্ষমতাসম্পন্ন চার জড়ি-বুটি-ই পারে তাঁর জীবন বাঁচাতে। এরমধ্যে অন্যতম ছিল সঞ্জীবনি বুটি। আর সেই বুটির কল্যাণেই প্রাণে বেঁচেছিলেন লক্ষণ।

সঞ্জীবনি বুটি নিয়ে চলেছেন হনুমান

রামায়ণে উল্লিখিত ‘সঞ্জীবনি বুটি’-র আদৌ কোনও বাস্তব অস্বিস্ত আছে কি না, তাই নিয়ে বিতর্কের অন্ত নেই। কিন্তু, উত্তরখাণ্ড সরকার হিমালয়ের কোলে ‘সঞ্জীবনি বুটি’ খোঁজার পরিকল্পনা নিয়ে এই বিতর্ক এবং জল্পনাকে আরও সিকিভাগ উসকে দিয়েছে। 

উত্তরাখণ্ড সরকার এবার নিজেই রামায়ণে উল্লিখিত ‘সঞ্জীবনি বুটি’-র খোঁজে হিমালয় চষে ফেলার পরিকল্পনা নিয়েছে। এর জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থও বরাদ্দ করা হয়েছে। যার পরিমাণ শুনলে আঁতকে উঠে পড়তে পারেন। ভারতীয় মুদ্রায় ২ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা এবং মার্কিন ডলারের হিসাবে ৩৭ মিলিয়ন।
উত্তরাখণ্ড সরকারের দাবি, হিমালয়ের যেখানে ‘ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স’ অবস্থিত, সেখানে বা তার আশপাশেই রয়েছে এই ‘সঞ্জীবনি বুটি’। 

হিমালয়ের কোলে বহু দুর্লভ জড়ি-বুটি আছে বলে দাবি করা হয় এবং তার মধ্যেই নাকি মিশে আছে এই ‘সঞ্জীবনি বুটি’। দশকের পর দশক এই দাবি করে আসছেন উদ্ভিদবিদ্যার গবেষক থেকে ইতিহাসবিদরা। মৃত মানুষকে নাকি বাঁচিয়ে তুলতে পারে ‘সঞ্জীবনি বুটি’। এর মধ্যে নাকি এক জাদু শক্তি আছে। অন্ধকারের মধ্যেও এই বুটি-র শরীর থেকে আলো ঠিকরে বের হয় বলে দাবি। বহু বছর ধরে ‘সঞ্জীবনি বুটি’-র খোঁজ চলছে। এবার উত্তরাখণ্ড সরকার নিজেই উদ্যোগী হয়েছে ‘সঞ্জীবনি বুটি’-র সন্ধানে। 

ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স

উত্তরাখণ্ড সরকারের অল্টারনেটিভ মেডিসিনের মন্ত্রী সুরেন্দ্র সিংহ নেগির দাবি, ‘সঞ্জীবনি বুটি’-র খোঁজে যে অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে তা কোনওমতেই জলে যেতে দেওয়া হবে না। তাঁরা ‘সঞ্জীবনি বুটি’ খুঁজে বের করবেন বলেই দাবি করছেন নেগি। 

হিমালয়ে চিনের সীমান্ত লাগোয়া দ্রোনাগিরি রেঞ্জে এই সন্ধান অভিযান চলবে। হনুমান এই দ্রোনাগিরি রেঞ্জ থেকেই ‘সঞ্জীবনি বুটি’ নিয়ে গিয়েছিলেন বলে রামায়ণে উল্লেখ আছে। অগস্ট থেকেই এই অভিযান শুরু হচ্ছে। এই সন্ধান অভিযানের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আর্থিক সাহায্য চেয়েছিল উত্তরাখণ্ড। কিন্তু, কেন্দ্র তা খারিজ করে দেয়। এরপর উত্তরাখণ্ড সরকার নিজেই এই অভিযানের অর্থ ব্যয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। সত্যি কি হিমালয়ের কোলে খোঁজ মিলবে ‘সঞ্জীবনি বুটি’-র? উত্তরাখণ্ড সরকারের উদ্যোগের দিকেই আপাতত তাকিয়ে প্রচুর মানুষ।

Post Top Ad